আজ বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১০ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরি
আজ বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১০ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরি

বার্সা স্নায়ুচাপে ছিল, বললেন পিকে

চ্যাম্পিয়নস লিগে ডায়নামো কিয়েভকে হারিয়ে গ্রুপ পর্বে শতভাগ সাফল্য ধরে রেখেছে বার্সেলোনা। তবে ২-১ গোলে জয়ের এই ম্যাচে বার্সেলোনা স্নায়ুচাপে ছিল। এ কারণে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ তারা হারায় বললেন স্প্যানিশ ডিফেন্ডার জেরার্দ পিকে।

পঞ্চম মিনিটে পেনাল্টি স্পট থেকে গোল করে রোনাল্ড কোমানের দলকে এগিয়ে দেন লিওনেল মেসি। ৬৫তম মিনিটে দারুণ হেডে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন পিকে। ন্যু ক্যাম্পে এদিন বিপজ্জনক প্রতিপক্ষ হিসেবে আবির্ভাব হয়েছিল কিয়েভের। তবে পুরো ৯০ মিনিটে ছয়টি দারুণ সেভে বার্সার মান বাঁচান গোলকিপার মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেন।

একাধিক গোলের দাবিদার কিয়েভ শেষ পর্যন্ত লক্ষ্যভেদ করে। ৭৫তম মিনিটে ভিক্তর সাইগানকোভ করেন গোল। তাই শেষ ১৫ মিনিট একটু চাপেই পড়েছিল বার্সা। পিকে ম্যাচ শেষে তা স্বীকার করেছেন, ‘প্রথমার্ধে সব ঠিকঠাক ছিল। তারপর ম্যাচ আমাদের হাত ফসকে যায়। আমরা নিয়ন্ত্রণ হারাই এবং স্নায়ুচাপে ছিলাম। আমাদের জন্য তারা পরিস্থিতি কঠিন করে তুলেছিল। তবে দারুণ ব্যাপার হচ্ছে তিনটি পয়েন্ট পেলাম।’

তবে আশা হারাচ্ছেন না পিকে, ‘অনেক বদলের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে ক্লাব। আমি মনে করি এটা দরকার ছিল কারণ আমরা ফর্ম নিয়ে ভুগছি। প্রত্যেক বছর আমাদের একটু খারাপ যায়। জানি এই বছরও সহজ হবে না কিন্তু আমরা চেষ্টা করবো প্রত্যেক ম্যাচে সেরাটা দেওয়ার।’

অবশ্য জার্মান গোলকিপারের চেয়েও মুগ্ধতা ছড়ান ডায়নামোর ১৮ বছর বয়সী কিপার রুসলান নেশচেরেট। মেসির ফ্রি কিক দারুণ ড্রাইভে ফিরিয়ে দেওয়া ছাড়াও ১১টি সেভ ছিল তার।

শেষ পর্যন্ত ম্যাচটি জেতায় খুশি দুই মাস পর মাঠে ফেরা টের স্টেগেন, ‘আমার কাছে ম্যাচ জেতা খুব গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আমি মাঠে ফিরে এসে আমার পছন্দের কাজটা করতে উন্মুখ ছিলাম। দ্বিতীয়ার্ধে আমরা একটু ভুগেছি। কিছু সুযোগও তৈরি করেছি, আমাদের বসতে হবে এবং উন্নতি কীভাবে করা যায় ভাবতে হবে।’

শেয়ার করুন:
Share on Facebook
Facebook
Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Print this page
Print