আজ সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১২ আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শ সফর, ১৪৪৩ হিজরি
আজ সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১২ আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শ সফর, ১৪৪৩ হিজরি

করোনায় আক্রান্ত ছাড়াল ২১ কোটি ৭২ লাখ

মহামারি করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে আরো ৭ হাজার ৪২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় মৃত্যু কমেছে ১২০০ এর বেশি। এতে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা ৪৫ লাখ ১৪ হাজার ৮৫২ জনে পৌঁছেছে।
একই সময়ে প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৪ লাখ ৫১ হাজার ৪৭৪ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা কমেছে ৯০ হাজারের বেশি। এতে মহামারির শুরু থেকে ভাইরাসে আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২১ কোটি ৭২ লাখ ২ হাজার ১৩৯ জনে।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে সোমবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্যানুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে করোনার সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ হয়েছে ভারতে। এ সময়ে দেশটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৩ হাজার ৩৮১ জন এবং মারা গেছেন ৫২৭ জন। করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। তবে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যার তালিকায় দেশটির অবস্থান তৃতীয়। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ৩ কোটি ২৭ লাখ ৩৭ হাজার ৫৬৯ জন এবং মারা গেছেন ৪ লাখ ৩৮ হাজার ৩৮৭ জন।

অন্যদিকে বিশ্বে দৈনিক প্রাণহানির শীর্ষে উঠে এসেছে রাশিয়া। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মারা গেছেন ৭৯৭ জন এবং নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১৯ হাজার ২৮৬ জন। এছাড়া মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৬৮ লাখ ৮২ হাজার ৮২৭ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৮১ হাজার ৬৩৭ জনের।

এছাড়া এখন পর্যন্ত ফ্রান্সে ৬৭ লাখ ৪২ হাজার ৪৮৮ জন, যুক্তরাজ্যে ৬৭ লাখ ৩১ হাজার ৪২৩ জন, ইতালিতে ৪৫ লাখ ৩০ হাজার ২৪৬ জন, তুরস্কে ৬৩ লাখ ৪৬ হাজার ৮৮১ জন, স্পেনে ৪৮ লাখ ৩১ হাজার ৮০৯ জন এবং জার্মানিতে ৩৯ লাখ ৪০ হাজার ২১১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

আর করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ফ্রান্সে এক লাখ ১৪ হাজার ২১০ জন, যুক্তরাজ্যে এক লাখ ৩২ হাজার ৪৩৭ জন, ইতালিতে এক লাখ ২৯ হাজার ৯৩ জন, তুরস্কে ৫৬ হাজার ২১৩ জন, স্পেনে ৮৪ হাজার এবং জার্মানিতে ৯২ হাজার ৬৪৩ জন মারা গেছেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর গত বছরের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে ‘বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে। এর আগে একই বছরের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করা হয়।