আজ বুধবার, ৩ মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৮ রজব, ১৪৪২ হিজরি
আজ বুধবার, ৩ মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৮ রজব, ১৪৪২ হিজরি

‘সর্বোচ্চ সুরক্ষা নিশ্চিত করেই শিক্ষার্থীদের স্কুলে ফেরানো হবে’

শিশুদের সুন্দর ভবিষ্যৎ নিশ্চিতে স্কুল খুলে দেওয়ার জন্য সরকারের পরিকল্পনাকে সফল করার উদ্দেশ্যে ১৫টি শীর্ষস্থানীয় জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে শুরু হলো ‘নিরাপদে ইশকুলে ফিরি’ ক্যাম্পেইন।

বুধবার (১০ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর একটি হোটেলে প্রধান অতিথি হিসেবে এই ক্যাম্পেইনের উদ্বোধন করে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, সরকার শিশুদের বিদ্যালয়ে ফেরাতে যথেষ্ট আন্তরিক। তবে সকল ঝুঁকি বিবেচনা ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করেই শিক্ষার্থীদের ফেরানো হবে।

তিনি আরো বলেন, কোভিড পরিস্থিতি আমাদের সামনে বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থার পুনর্মুল্যায়ন ও সংস্কারের একটি সুযোগও তৈরী করেছে। শিক্ষা সংশ্লিষ্ট সরকারি বিভাগ, প্রতিষ্ঠান, সরকারি-বেসরকারি উন্নয়ন ও দাতা সংস্থা সবাই একসাথে কাজ করেই শিশুদের নিরাপদে স্কুলে ফেরাতে চায় সরকার।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক সোহেল আহমেদ, বাংলাদেশে ইউনিসেফের উপ-প্রতিনিধি ভিরা মেন্ডোনকা এবং বাংলাদেশস্থ কানাডার হাইকমিশনের হেড অব ডেভলপমেন্ট এ্যাসিট্যান্স ফেদ্রা মুন মরিস।

ইউনিসেফের উপ-প্রতিনিধি ভিরা মেন্ডোনকা মহামারির মধ্যে শিশুদের জন্য স্কুলকে সবচেয়ে নিরাপদ জায়গা হিসেবে নিশ্চিতে উন্নয়ন সংস্থা এবং সরকারের মধ্যে পারষ্পরিক সহযোগিতার উপর গুরুত্ব আরোপ করেন। তিনি বলেন স্বাস্থ্যঝুঁকি বিবেচনা করার পাশাপাশি সরকারকে এটাও ভাবতে হবে মহামারী পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীদেরে ঝরে পড়া ও বাল্য বিবাহের হারও বেড়ে গেছে। ফলে এই পরিস্থিতির উন্নয়নে কিভাবে কাজ করা যায় তা বের করা জরুরী।

শিক্ষক ও শিক্ষা সংশ্লিষ্টদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকাদানের সরকারি উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন বাংলাদেশস্থ কানাডার হাইকমিশনের হেড অব ডেভলপমেন্ট এ্যাসিট্যান্স ফেদ্রা মুন মরিস ।

সেভ দ্য চিলড্রেন ইন বাংলাদেশ এর পরিচালক (প্রোগ্রাম ডেভেলপমেন্ট এন্ড কোয়ালিটি) রিফাত বিন সাত্তার এই ক্যাম্পেইনের পটভূমি এবং বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়ে আলোকপাত করেন। বিভিন্ন গবেষণার ফলাফলের উপর ভিত্তি করে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনা করেন ব্র্যাকের ঊর্ধ্বতন পরিচালক কেএএম মোরশেদ। ওয়ার্ল্ড ভিশনের পরিচালক টনি মাইকেল অনুষ্ঠানটি সমন্বয় ও সঞ্চালনা করেন।

বিগত ১০ মাস স্কুলে না যেতে পারার বিষয় নিয়ে অনুষ্ঠানে অভিজ্ঞতা বিনিময় করে জাতীয় শিশু টাস্ক ফোর্স এর শিশুরা। তারা উন্নত ভবিষ্যৎ এবং অধিকতর মানসিক স্বাস্থ্য নিশ্চিতে স্কুল খুলে দেওয়ার কোন বিকল্প নেই বলে মত প্রকাশ করে।

সেভ দ্য চিলড্রেন ইন বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর অনো ভ্যান ম্যানেন সমাপনী বক্তব্যে বলেন, এই ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে সরকারের স্কুল খোলার পরিকল্পনায় সহযোগী ভূমিকা পালন করতে প্রস্তুত সংস্থাগুলো। আগামীতে আরও উন্নয়ন সংস্থা এই ক্যাম্পেইনের সাথে যুক্ত হওয়ার আশাবাদও ব্যক্ত করেন তিনি।

‘নিরাপদে ইশকুলে ফিরি’ ক্যাম্পেইন এর লক্ষ্য হলো সরকারকে সহায়তা করা যাতে করে শিশু, পরিবার, অভিভাবক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে শিক্ষা কার্যক্রম শুরুর জন্য প্রস্ততু হতে পারে। এই ক্যাম্পেইনে যোগদানকারী উন্নয়ন সংস্থাগুলো হল – ব্র্যাক, ক্যাম্পেইন ফর পপুলার এডুকেশন, ঢাকা আহছানিয়া মিশন, এডুকো বাংলাদেশ, এফআইভিডিবি, ফ্রেন্ডশিপ, হিউম্যানিটি ইনক্লুশন, জাগরনী চক্র ফাউন্ডেশন, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ, রুম টু রিড, সেভ দ্য চিলড্রেন ইন বাংলাদেশ, সিসেমি ওয়ার্কশপ বাংলাদেশ, স্ট্রমি ফাউন্ডেশন, ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এবং ইয়ং পাওয়ার ইন সোশ্যাল অ্যাকশন।

শেয়ার করুন:
Share on Facebook
Facebook
Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Print this page
Print