আজ শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরি
আজ শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরি

স্বল্প সুদে গৃহনির্মাণ ঋণ: পাচ্ছে ৪ বিশ্ববিদ্যালয়

দেশের ৪ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ‘ভর্তুকিযুক্ত’ গৃহনির্মাণ ঋণ সুবিধার আওতায় আসছেন। চলতি বছরের ডিসেম্বর থেকে তারা এই ঋণের জন‌্য আবেদন করতে পারবেন। যে ৪ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় এই সুবিধার আওতায় আসছে, সেগুলো হলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি), চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) এবং সিলেট হযরত শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (এসইউএসটি) ও সিলেট কৃষি ইউনিভার্সিটি (সিকৃবি) ।

অর্থ বিভাগের গৃহনির্মাণ ঋণ সেলের একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘এর আগে সরকারি কর্মকর্তাদের গৃহনির্মাণের জন্য সহজ শর্তে ঋণের ঘোষণা দেওয়ার পর পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও স্বল্পসুদে এই ঋণের দাবি জানান। এরই আলোকে সরকার তাদের সহজ শর্তে ঋণ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘বিশ্ব বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সরকার নির্ধারিত রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে এই ঋণের জন্য আবেদন করতে পারবেন। এই ঋণ দিয়ে তারা স্বল্প সুদে ফ্ল্যাট কিনতে পারবেন।’

অর্থ বিভাগের ‘হোম লোন সেল’সূত্রে জানা গেছে, ৪ বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ গত ৫ নভেম্বর রাষ্ট্রায়ত্ত দুই ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করেছে। এরমধ‌্যে সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং হযরত শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় চুক্তি করেছে। বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফিনান্স করপোরেশন ও রূপালী ব্যাংকের সঙ্গে চুক্তি করেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ও সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়।

এসইউএসটি’র উপাচার্য ও বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির (এফবিইউটিএ) ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ও কর্মকর্তারা কম সুদে হারে ফ্ল্যাট কিনতে সক্ষম হবেন, এটি তাদের জন‌্য সুসংবাদ।’ তিনি আরও বলেন, ‘গ্রাম ও ছোট শহর থেকে আসা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মচারীরা সর্বাধিক আর্থিক সুবিধা পাবেন।’

 

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ২৮ ডিসেম্বর অর্থ সচিব আবদুল রাউফ তালুকদার স্বাক্ষরিত গৃহনির্মান ঋণ নীতি সম্পর্কিত বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। এতে বলা হয়, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ৬৪ বছর বয়স পর্যন্ত গৃহনির্মাণ ঋণ পাবেন। এই ঋণের সুদের হার হবে ১০ শতাংশ। এর মধ্যে ৫ শতাংশ দেবে সরকার। বাকি ৫ শতাংশ ঋণগ্রহিতাকে পরিশোধ করতে হবে। একজন ঋণ গ্রহিতা সর্বনিম্ন ৩০ লাখ টাকা এবং সর্বোচ্চ ৭৫ লাখ টাকার ঋণ নিতে পারবেন। এই ঋণের গ্রেস পিরিয়ড হবে ছয় মাস। ২০ বছরে এ ঋণ পরিশোধ করতে হবে।

শেয়ার করুন:
Share on Facebook
Facebook
Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Print this page
Print